খাদ্যশস্য রক্ষার্থে পাকিস্তানে হাঁস পাঠাবে চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
পঙ্গপাল থেকে আঞ্চলিক খাদ্যশস্য সুরক্ষার লড়াইয়ে সহায়তায় পাকিস্তানে হাঁস পাঠাবে চীন। চীনের পূর্বের প্রদেশ ঝেজিয়াং থেকে পাকিস্তানের চার হাজার ২৮৭ কিলোমিটার সীমান্তে প্রায় কমপক্ষে এক লাখ হাঁস মোতায়েন করা হবে।

চীনের সরকারি কর্তৃপক্ষের বরাতে এ খবর প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিপেনডেন্ট।

ঝেজিয়াং প্রাদেশিক ইন্সটিটিউট অফ এগ্রিকালচারাল সাইন্সের গবেষক লু লিঝি স্থানীয় সংবাদপত্র দ্যা নেংবো ইভিনিং নিউজকে জানান, পঙ্গপালের সঙ্গে লড়াই করার জন্য এই বছরের দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই কমপক্ষে এক লাখ হাঁসকে চীন-পাকিস্তান সীমান্তে পাঠানো হবে। আমাদের একটি হাঁস প্রতিদিন দুইশটি করে পঙ্গপাল খেতে পারে। আর হাঁসদের পাকিস্তানে প্রেরণের আগে চীনের পশ্চিমাঞ্চলীয় জিনজিয়াংয়ে তাদের পরীক্ষা করা হবে।

কুড়ি বছর আগে পঙ্গপালের আক্রমণ নিয়ন্ত্রণের কার্যকর পদ্ধতি বলে এটি প্রমাণিত হয়েছিল বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, হাঁস দলবদ্ধ হয়ে থাকে। মুরগির থেকে তারা বেশি কার্যকর। পঙ্গপাল নিধনে হাঁস পরিবেশবান্ধব ও সস্তা।

চীনের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন সিজিটিএন এক ভিডিও বার্তায় জানায়, ৪০০ বিলিয়ন পঙ্গপাল ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত থেকে চীনের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। আর এই জরুরি অবস্থার জন্য এক লাখ হাঁসের বাহিনী তৈরি রয়েছে।

২০০২ সালেও পঙ্গপাল থেকে খাদ্যশস্য রক্ষা করতে ৭০ হাজার হাঁস ও মুরগি চীনের জিনজিয়াংয়ে প্রেরণ করেছিল চীনা সরকার। ওই সময় চীনের সীমান্তের ৩৮ লাখ হেক্টর ফসল এবং তৃণভূমি নষ্ট করে পোকাটি।

চলতি বছরে পঙ্গপাল পূর্ব আফ্রিকা, দক্ষিণ এশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশের খাদ্যশস্য ও চারণভূমি নষ্ট করেছে। পঙ্গপাল থেকে খাদ্যশস্য রক্ষায় গত মাসে জরুরি অবস্থা জারি করে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তখন দেশটির তথ্যমন্ত্রী জানান, দুই দশকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি পঙ্গপালের আক্রমণের শিকার হয়েছি আমরা। পাকিস্তানের সবচেয়ে বেশি খাদ্যশস্য হওয়া অঞ্চলে এটি আক্রমণ করে। অনাবৃষ্টি, নিম্ন মানের বীজ ও ভঙ্গুর অর্থনীতির ফলে অঞ্চলটি চরম হুমকির মধ্যে রয়েছে।

করাচিতে চীনের দূতাবাসের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পঙ্গপালের প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে এই সপ্তাহে চীনের একটি বিশেষজ্ঞ দল পাকিস্তান সফর করবে।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা জানিয়েছে, পঙ্গপাল আক্রমণ কতটা গুরুতর হতে পারে তা বিচার করতে আফ্রিকার দিকে নজর দিন। আফ্রিকার পূর্বাঞ্চলে মরুভূমি পঙ্গপালের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ব্যয় দ্বিগুণ হয়ে ১২৮ মিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া প্রতিদিন আরও বেশি দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। #