জ্বালানি সংকটের মুখে সৌরবিদ্যুতে নজর যুক্তরাষ্ট্রের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ইউক্রেন যুদ্ধকে কেন্দ্র করে জ্বালানি সংকটের মুখে সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনে গতি আনতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার চারটি দেশ থেকে সোলার প্যানেল আমদানির ওপর শুল্ক রেয়াতের ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রে সোলার প্যানেলসহ সৌরবিদ্যুতের প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ উৎপাদনে স্থানীয় কোম্পানিগুলোকে উৎসাহ দিতে উৎপাদন সুরক্ষা আইন করেছেন তিনি।

সোমবার (৬ জুন) এক নির্বাহী আদেশে আগামী ২৪ মাসের জন্য কম্বোডিয়া, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনাম থেকে সোলার প্যানেল আমদানিতে শুল্ক মওকুফের ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। দেশে ব্যাপকভাবে সোলার প্যানেল উৎপাদনে যাওয়ার আগ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনে এ ঘোষণা কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে আশা করছে হোয়াইট হাউস।

পাশাপাশি আমদানি করা সস্তা সোলার প্যানেলের বিপরীতে যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সোলার প্যানেল উৎপাদকদের সুরক্ষা দিতে ‘ডিফেন্স প্রোডাকশন অ্যাক্ট’ নামে একটি আইন জারি করেছেন বাইডেন। এ নির্বাহী ঘোষণার পরপরই বাড়তে শুরু করেছে সানপাওয়ার, সানরানসহ যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সোলার প্যানেল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ারের দাম।

হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, ডিফেন্স প্রোডাকশন অ্যাক্ট কার্যকরের মাধ্যমে সৌরবিদ্যুতে পরিচালিত ট্রান্সফর্মার এবং অন্যান্য যন্ত্রপাতির জন্য প্রয়োজনীয় ফুয়েল সেল উৎপাদনে গতি আসবে। যুক্তরাষ্ট্রে বিভিন্ন সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতি থেকে উত্তরণ এবং জলবায়ু উষ্ণতার বিরুদ্ধে কার্যকর লড়াইয়ের অংশ হিসেবে এ পদক্ষেপ বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউস।

তবে বৈশ্বিক উষ্ণতা প্রতিরোধের কথা বলা হলেও বাইডেন এমন সময়ে এ ঘোষণা দিলেন যখন ইউক্রেন যুদ্ধের জেরে তীব্র জ্বালানি সংকটে ভুগছে যুক্তরাষ্ট্রের ইউরোপীয় মিত্ররা। রাশিয়ার তেল ও গ্যাসের ওপর নির্ভরতা কমাতে বিকল্প জ্বালানি প্রযুক্তির মাধ্যমে মিত্রদের সহায়তা দিতেই বাইডেনের এই পদক্ষেপ বলে মনে করা হচ্ছে।

হোয়াইট হাউসের বিবৃতিতেও বিষয়টি ফুটে ওঠে। সেখানে বলা হয়, বিকল্প ও নবায়নযোগ্য জ্বালানির শক্তিশালী শিল্প গড়ে তোলার মাধ্যমে ইউক্রেনে পুতিনের যুদ্ধের জবাবে বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর জন্য আরও শক্তিশালী মিত্র হিসেবে আবির্ভূত হবে যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্পগুলোতে স্থানীয় উৎপাদকদের তৈরি প্যানেল খুব কমই ব্যবহার হয়। দেশটিতে ব্যবহৃত বেশিরভাগই মূলত আমদানি করা প্যানেলের ওপর নির্ভরশীল। তবে ডিফেন্স প্রোডাকশন অ্যাক্ট বাস্তবায়ন হলে আমদানি করা সোলার প্যানেলের বিরুদ্ধে প্রতিযোগিতায় ব্যাপক সুবিধা পাবে স্থানীয় সোলার প্যানেল উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলো।