জুলাই ১৮, ২০২৪

আমাদের সম্পর্কে আরো জানুনঃ

বললে সবার আগে ভ্যাকসিন নিব, কিন্তু লোকে স্বার্থপর ভাববে: ট্রাম্প

উন্নয়ন ডেস্ক –

করোনাভাইরাসের টিকা নেবেন বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বুধবার (২২ জুলাই) রাতে ফক্স নিউজকে দেয়া সংক্ষিপ্ত এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, আমাকে যদি বলা হয় তাহলে, আমি সবার আগে করোনার টিকা নেব।

ফাইজার উদ্ভাবিত টিকার ১ কোটি ডোজ নিতে ২০০ কোটি ডলারের একটি ক্রয়াদেশ ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা পর ফক্স নিউজের মেডিকেল কন্ট্রিবিউটার ডা. মার্ক সিগেলের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। সেখানেই বলেন, তাকে বলা হলে তিনি সবার আগে করোনার ভ্যাকসিন নেবেন।

তিনি প্রেসিডেন্ট অত্যন্ত বিনয়ের সঙ্গে বলেছেন, আমি জনগণকে বলতে চাই, আমি এমন কিছু করবো না যাতে আমাকে স্বার্থপর মনে হয়।

নিজের ভ্যাকসিন নেয়ার ব্যাপারে প্রশ্ন করলে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, দেখুন, আপনি জানেন মানুষ কেমনটা ভাবে। আমিই যদি প্রথমে ভ্যাকসিনটা নিই তাহলে তারা ভাবে এই লোক খুব স্বার্থপর, এই লোক সবার আগে ভ্যাকসিন নিতে চাচ্ছে। আবার অন্য লোকেরা বলবে, আরে, এতো খুব সাহসের কাজ।

তিনি বলেন, তারা যদি চায় এবং সঠিক মনে করে তাহলে আমি অবশ্যই ভ্যাকসিন নেব। আমি ভ্যাকসিন সবার আগে বা সবার শেষে যেটিই ভালো হয় নেব।

প্রেসিডেন্ট আরো যোগ করেন, যে কোনোভাবেই হোক আমাকে তারা হারাবেনই, বুঝলেন? আমি যদি ভ্যাকসিন না নিই তারা বলছে এই লোক এই টিকা কর্মসূচিতেই নিজেই বিশ্বাস করে না। কিন্তু যখন আমি কোনো কিছুকে উত্তম মনে করি, আমরা যদি সর্বোত্তম মনে করি তাহলে অবশ্যই আমি সেটি করবো।

তবে করোনা প্রতিরোধে ভ্যাকসিনের পাশাপাশি থেরাপিউটিক চিকিৎসা পদ্ধতি উদ্ভাবনের ওপরও জোর দেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। লকডাউন তুলে নেয়ার পর এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে এ বিষয়ে ভালো কাজ শুরু হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। করোনা চিকিৎসায় এই থেরাপিউটিক চিকিৎসাকেই এগিয়ে রাখবেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এদিকে গত সোমবার অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির তৈরি ভ্যাকসিনটির পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অগ্রিম ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট গবেষকেরা বলছেন, প্রাথমিকভাবে যে ফলাফল পাওয়া গেছে, এর ভিত্তিতে বলা যায় যে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনটির সম্ভাবনা অনেক বেশি। এটি কভিড-১৯ থেকে মানুষকে কতটা কার্যকরভাবে সুরক্ষা দিতে পারে, তা পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। যুক্তরাজ্যের পাশাপাশি এটি দক্ষিণ আফ্রিকা ও ব্রাজিলেও পরীক্ষা করা হচ্ছে।

অক্সফোর্ডের পাশাপাশি মার্কিন ওষুধ কোম্পানি ফাইজার ও জার্মান জৈবপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান বায়ো এন টেকের পক্ষ থেকেও তাদের টিকা নিরাপদ বলে জানানো হয়েছে। করোনা ঠেকাতে চীনের সিনোভেকের তৈরি টিকাটি মঙ্গলবার ব্রাজিলে পরীক্ষার চূড়ান্ত পর্যায়ে প্রবেশ করেছে। সেখানে স্বেচ্ছাসেবীরা টিকাটির প্রথম ডোজ পেয়েছেন।

সূত্র: নিউইয়র্ক পোস্ট

Facebook
Twitter
LinkedIn
Pinterest
Reddit