জুন ১৪, ২০২৪

আমাদের সম্পর্কে আরো জানুনঃ

ব্যবসায় দ্রুততর হচ্ছে ডিজিটাল রূপান্তর

উননয়ন ডেস্ক –

প্রচলিত পদ্ধতিতে বিদ্যমান ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিল্প ডিজিটাল পদ্ধতিতে রূপান্তর শুরু হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। তিনি বলেন, আমরা এখন চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের যুগে বসবাস করছি। এটা ছড়িয়ে দিতে হবে।

আমাদের বড় সম্পদের নাম হচ্ছে মানবসম্পদ। এই সম্পদ কাজে লাগাতে হবে। মন্ত্রী জ্ঞান ভিত্তিক সাম্য সমাজ বিনির্মাণে বিদ্যমান সম্পদের আর্থিক মূল্যায়ন পদ্ধতিতেও মেধাসম্পদকে প্রাধান্য প্রদানের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। শনিবার ঢাকায় বেসিস প্রণীত মানবসম্পদ হ্যান্ডবুকের প্রকাশনার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবিরের সঞ্চালনায় জুম কনফারেন্সিংয়ে বেসিসের সাবেক সভাপতি এ তৌহিদ, হাবিবুল্লাহ এন করিম, রফিকুল ইসলাম রাউলি, মাহবুব জামান, শামীম আহসান এবং বেসিসের সাবেক পরিচালক শাহ ইমরুল কায়েস বক্তৃতা করেন। মন্ত্রী বলেন, করোনায় গ্রামের প্রত্যন্ত স্কুলটিও ইন্টারনেটে অনলাইন ক্লাস প্রত্যাশা করছে। সময়ের প্রয়োজনে খাদ্যের মতোই ইন্টারনেটের প্রয়োজনীয়তা সমান তালে চলছে।

করোনাকালে শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে ডিজিটাল প্রযুক্তির প্রয়োজনীয়তা অনিবার্য হয়ে উঠেছে। ডিজিটাল ইন্ডাস্ট্রির প্রয়োজনীয়তা আগামী দিনে ব্যাপক আকারে বৃদ্ধি পাবে উল্লেখ করে বেসিস প্রতিষ্ঠাতা মোস্তাফা জব্বার বলেন, বাংলাদেশ কেবল সফটওয়্যার উৎপাদনই করছে না। আমাদের মেধাবী তরুণদের উদ্ভাবিত সফটওয়্যার বিদেশে রফতানি হচ্ছে। দেশে আমরা যা উৎপাদন করতে পারি তা বিদেশ থেকে আমদানি করার প্রয়োজন হবে না উল্লেখ করেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, আমরা মোট চাহিদার শতকরা পঞ্চাশ ভাগ মোবাইল ফোন উৎপাদন করছি। করোনা পরিস্থিতি না থাকলে তা শতকরা ৭০ ভাগ উৎপাদন করা এতদিনে সম্ভব হতো। কম্পিউটার উৎপাদনের ক্ষেত্রেও বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। মন্ত্রী তরুণ উদ্ভাবকদের কপিরাইট আইন, পণ্যের পেটেন্ট সংরক্ষণ এবং ট্রেডমার্ক বিষয়ে অধিকতর সচেতনতার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। পরে মন্ত্রী এইচ আর হ্যান্ড বুকের মোড়ক উন্মোচন করেন।

Facebook
Twitter
LinkedIn
Pinterest
Reddit