স্বর্ণের চেয়ে জোরে ছুটছে রুপা

উন্নয়ন ডেস্ক –

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শুক্রবার বড় দরপতন হলেও সপ্তাহের ব্যবধানে আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের ও রুপার দামে বড় উত্থান হয়েছে। অবশ্য স্বর্ণ থেকে কয়েকগুণ বেশি হারে বেড়েছে রুপার দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে স্বর্ণের দাম বেড়েছে ৩ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ। বিপরীতে রুপার দাম বেড়েছে ১৬ দশমিক ১৪ শতাংশ।

দাম বাড়ার দিক থেকে সোনার তুলনায় রুপা যেমন কয়েকগুণ এগিয়ে রয়েছে, তেমনি সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে দরপতনের হারেও এগিয়ে রয়েছে রুপা। শেষ কার্যদিবসে সোনার দাম কমেছে ১ দশমিক ৬৫ শতাংশ। আর রুপার দাম কমেছে ৪ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

মহামারি করোনাভইরাসের প্রকোপের মধ্যে চলতি বছরের শুরু থেকেই স্বর্ণের দাম লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। তবে জুলাই মাসের শেষ অর্ধ থেকে সোনার দাম বাড়ার পালে নতুন হাওয়া লাগে। এতে সৃষ্টি হয় একের পর এক রেকর্ড। এতে প্রতি আউন্স সোনার দাম ইতিহাসে প্রথমবারের মতো দুই হাজার ডলারে পৌঁছেছে।

এদিকে মহামারি করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যে রুপার দামেও বড় উত্থান হয়েছে। তবে চলতি বছরের শুরুর দিকে রুপার দাম বাড়ার ক্ষেত্রে তেমন চমক ছিল না। কিন্তু জুলাই মাসের শেষ অর্ধে এতে হঠাৎ করেই হু হু করে বাড়তে থাকে রুপার দাম। এতে ২০১৩ সালের মার্চে পর রুপার দাম সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, চলতি বছরের শুরু থেকেই বিশ্ববাজারে উত্তাপ ছড়ানো স্বর্ণের দাম জুলাই মাসের শেষ অর্ধে এসে পাগলা ঘোড়ার মতো ছুটতে থাকায় মূল্যবান ধাতুটি ২৭ জুলাই অতীতের সকল রেকর্ড ভেঙে সর্বোচ্চ দামের নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করে। তবে এখানেই স্বর্ণের দাম বাড়ার প্রবণতা থেমে থাকেনি। গত সপ্তাহে প্রথমবারের মতো দুই হাজার ডলারের মাইলফলক স্পর্শ করে সোনা।

দফায় দফায় দাম বেড়ে চলতি সপ্তাহে প্রতি আউন্স সোনার দাম ২ হাজার ৭৪ ডলারে উঠে। তবে শুক্রবার ৩৪ দশমিক ১০ ডলার কমে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৩৪ দশমিক ৮০ ডলারে দাঁড়িয়েছে। এই দরপতনের পরও সপ্তাহের ব্যবধানে ৩ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ এবং মাসের ব্যবধানে ১২ দশমিক ৪৮ শতাংশ দাম বেড়েছে। এর মাধ্যমে চলতি বছরে প্রতি আউন্স সোনার দাম ৫০৬ দশমিক ৫৫ ডলার বা ৩৩ দশমিক ১৫ শতাংশ বেড়েছে।

এদিকে বছরের শুরুর দিকে স্থিতিশীল থাকলেও জুলাই মাসের শেষ অর্ধে সোনার দেখানো পথে হাঁটতে শুরু করে রুপা। হু হু করে দাম বেড়ে প্রতি আউন্স রুপার দাম ২৮ দশমিক ২৬ ডলারে পৌঁছেছে গেছে। এর মাধ্যমে ২০১৩ সালের মার্চের পর প্রতি আউন্স রুপার দাম আবার ২৮ ডলার ছাড়িয়ে গেল। সাত বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থানে পৌঁছাতে চলতি বছর প্রতি আউন্স রূপার দাম বেড়েছে ১০ দশমিক ২৫ ডলার বা ৫৬ দশমিক ৮৮ শতাংশ।

বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ার প্রেক্ষিতে ৬ আগস্ট থেকে দেশের বাজারেও স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়েছে। নতুন দাম অনুযায়ী, ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের ভরিপ্রতি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) সোনার দাম চার হাজার ৪৩২ টাকা বাড়িয়ে নির্ধারণ করা হয়েছে ৭৭ হাজার ২১৬ টাকা। ২১ ক্যারেটের স্বর্ণ ৭৪ হাজার ৬৬ টাকা, ১৮ ক্যারেটের স্বর্ণ ৬৫ হাজার ৩১৮ টাকায় ও সনাতন পদ্ধতির প্রতিভরি স্বর্ণ বিক্রি ৫৪ হাজার ৯৯৬ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। সোনার দাম বাড়ানো হলেও রুপার দাম অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

সোনার এ দাম বাড়ানো সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিতে বাজুসের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালার বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট অর্থনৈতিক সংকট, চীন-যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যযুদ্ধের কারণে ইউএস ডলারের দরপতন হচ্ছে। ফলে আন্তর্জাতিক বাজারে ক্রমাগতভাবে স্বর্ণের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় দেশীয় বুলিয়ন মার্কেটেও স্বর্ণের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় এনে বাজুস ৬ আগস্ট থেকে দেশের বাজারে স্বর্ণ ও রৌপ্যের নতুন মূল্য নির্ধারণ করেছে।